Arnab - Bangla Musicভিন্ন ধারার গায়েন অর্ণব। তার দুটো অ্যালবাম চাই না ভাবিস এবং হোক কলরব তাকে প্রতিষ্ঠিত করেছে পুরো মাত্রায়। এক বছরের ব্যবধানে প্রকাশিত হয়েছে তার তৃতীয় একক অ্যালবাম ডুব। বেঙ্গল মিউজিকের পরিবেশনায় অ্যালবামটি স্পন্সর করেছে নকিয়া। অর্ণবের সঙ্গে কথা বলে লিখেছেন রেজাউর রহমান রিজভী

ডুব অ্যালবামে কি ধরনের গান রয়েছে?
এ অ্যালবামে আমার আগের দুটো অ্যালবামের ধাচের কিছু গান রয়েছে। যেমন অ্যালবামে দুই-তিনটা গান রয়েছে হোক কলরব-এর মতো। দুটো গান রয়েছে চাই না ভাবিস-এর মতো। এর পাশাপাশি নতুন ধারার কিছু গান করেছি। যে ধারায় এর আগে আমাকে দেখা যায়নি। এ রকম মিউজিক এর আগে আমি ট্রাই করিনি।

এ অ্যালবামে আপনি হার্ডরক ধারার গানও করেছেন। এর কারণ কি?
গানের লিরিকই সুরটা কেমন হবে সেটা নির্দেশ করে। আমি যে গান হার্ডরক করেছি তার লিরিকই আসলে হার্ডরক ফর্ম ডিমান্ড করে।

আপনি শুধু অ্যাকুয়েস্টিক গিটারের ওপর গানও করেছেন। এটা কোন ভাবনা থেকে?
প্রযুক্তির আশীর্বাদে এখন যে কেউ শিল্পী হতে পারেন। কোনো ধরনের টিউনার বা ইফেক্ট ছাড়া শুধু গলায় কতোটা গাইতে পারি সেটা নির্ণয় করার জন্যই এ স্টাইল ফলো করেছি। আমি কতোটা সুরে গাইতে পারি সেটা বোঝার জন্যই আসলে এটা করা।

আপনি এ অ্যালবামে ১১ মিনিট ব্যাপ্তির একটি রবীন্দ্র সঙ্গীত করেছেন। ৪-৫ মিনিটের রবীন্দ্র সঙ্গীতকে বর্ধিত কলেবরে প্রকাশের কারণ সম্পর্কে বলুন।
রবীন্দ্র সঙ্গীতের দীর্ঘ দিন যে টাইপটা সেটা ভেঙে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করেছি বলতে পারেন। এ গানের যে আবেদন, মিউজিক পার্টে তার একটা রূপ দেয়া হয়েছে। এ রূপটাকে পরিপূর্ণ করতে যতোটা ব্যাপ্তি দরকার তা রাখা হয়েছে।

আমাদের রবীন্দ্র সঙ্গীত বোদ্ধারা বিষয়টিকে কিভাবে দেখবেন বলে ভাবছেন?
জানি না। ভালোভাবে নেবেন বলেই আশা রাখি। শান্তির নিকেতন যারা শুনেছে তারা ভালো বলেছে।

অ্যালবামের গীতিকার কারা?
শাহানা এবং আমার পাশাপাশি এ অ্যালবামে গান লিখেছেন আনিসুল হক, টোকন ঠাকুর, শতরূপা, ফারিহা, রাজীব আশরাফ। সবার লেখা গানগুলোই ভালো, তা না হলে তো আর রেকর্ড হতো না।

সূত্রঃ যায়যায়দিন।